রিচা ম্যাডাম


945788_379026125542272_1854410050_n1জনের কথাঃ

রিচা ম্যাডামের কথাঃ
অনেকদিন বাদে জনের সাথে দেখা হল। ও যে এই কলেজে ফাইনালে পড়ে জানতাম না। আমার দিদির মেয়েও এই কলেজেই এবার ভর্তি হয়েছে। আজ ওদের কলেজে প্রোগ্রাম ছিল। ওর মা যেতে পারবেনা শুনে আমি এলাম বোনঝির সাথে। ভাগ্যিস এসেছিলাম, তাই না জনকে দেখতে পেলাম। অনেক পরিনত হয়েছে ও। সেই বাচ্ছাছেলে ভাবটা আর নেই। ওদের নাটক শেষ হবার পর পর ও নিজে থেকেই এগিয়ে এসেছিল। আমাকে বসতে বলে মেকআপ রুম থেকে মেকআপ তুলে বেরিয়ে এল। আমার হাত ধরে টেনে নিয়ে গেল কলেজের সামনে কাফেতে, কফি খাওয়ানোর জন্য। ওকে কনগ্র্যাটস জানালাম ওর পারফরম্যানসের জন্য। ও যে স্কুলে পড়ত আমি ইংলিস টিচার হিসাবে ওই স্কুলেই প্রথম যোগ দেই আমার ২৫ বছর বয়েসে। ছাত্র হিসাবে জনকে প্রথম থেকেই ভালো লেগেছিল। যার ফলে ক্লাস ও সিলেবাসের বাইরে আমাদের মধ্যে নানা রকম কথা হত, বিভিন্ন বিষয়ে আলোচনাও হত। অন্য ছাত্রদের থেকে জন ছিল আমার সাথে অনেক ফ্রী। আজ সাত বছর পরে জনের সাথে দেখা হয়ে খুব ভালো লাগছিল। বাড়ি ফেরার সময় মনে হল আমার জীবনের সমস্যাটা নিয়ে জনের সাথে একটু আলোচনা করা উচিত। ও বড় হয়েছে, বুঝতে পারবে এসব কথা। তাই ওর মোবাইল নাম্বারটা নিয়ে নিয়েছি। ভাবছি এই উইকএন্ড এ ওকে বাড়িতে ডাকবো ডিনার করাতে।

জনের কথাঃ
ওনার ফোনটা পেয়ে চমকে গেছিলাম। শনিবার উনি আমাকে ডিনারে আমন্ত্রন জানিয়েছেন। ওয়াও… টুউউ গুড। আসলে স্কুল এর সময় থেকেই রিচা ম্যাডামের উপর আমার একটা দুর্বলতা ছিল। ওনার সঙ্গ ভালো লাগত। উনিও আমার সাথে নানা ব্যাপারে কথা বলতেন যেগুলো উনি অন্য কারুর সাথে হয়ত বলতেন না, খুব রোমান্টিক মহিলা ছিলেন উনি। এতদিন পরে ওনার ইনভাইটেশন পেয়ে সেই পুরানো দিনগুলোকে ফিরে পেতে চাইছিলাম। ওনার কাছ থেকে ডাইরেকশন বুঝে নিয়ে বাইক চেপে চলে এসেছিলাম ওনার ফ্ল্যাটে। সাদর অভ্যর্থনা করেছিলেন উনি। দুজনে একসাথে বসে ডিনার করলাম। বিরিয়ানি আর বাটার চিকেন। ওনার হাতের রান্না এককথায় অসাধারন (পাঠকরা দয়া করে খাই খাই করবেন না)। পেট ঠেসে খেয়ে বেসিনে হাত ধুচ্ছি এমন সময় বৃষ্টি। একদিক থেকে ভালই হল, কিছুক্ষন তো ওনার সাথে কাটান যাবে! দু-গ্লাস রেড ওয়াইন নিয়ে এলেন- “হ্যাভ ইট জন।” মুখোমুখি চেয়ারে বসে রিচা ম্যাডাম বললেন, “তোমাকে কিছু কথা বলতে চাই জন, আমার গল্প।”
ম্যাডামের কাহিনী সত্যিই দুঃখজনক। একটা নারীমাংসলোলুপ রাক্ষসের সাথে একজন মেয়ের বিয়ে হলে সেই মেয়েটির যা অবস্থা হয় ম্যাডামের অবস্থাও তাই। যতদুর বুঝলাম, বিয়ের পরে এক-রাতের জন্যও ম্যাডাম শান্তিতে ঘুমাতে পারেননি। প্রতি রাত্রে ম্যাডামের শরীর ও মনের উপর দিয়ে বুলডোজার চালিয়েছে রাক্ষসটা। ওনার পেটে লাথি মেরে ওনার গর্ভস্থ সন্তানকে গর্ভেই মেরে ফেলেছে ও চিরজীবনের জন্য ওনার মা হবার সম্ভাবনা শেষ করে দিয়েছে। তবে এসবের শাস্তিও সে পেয়েছে তাড়াতাড়ি। আকন্ঠ মদ্যপান করে মাঝরাতে ক্লাব থেকে ফিরছিল গাড়ি চালিয়ে, চলন্ত ট্রাকের সাথে হেড-অন। কর্তা ফিনিস, কর্ম ফিনিস, কারক ফিনিস। এখন উনি ম্যাডাম থাকেন একটা ফ্ল্যাটে, পুরানো চাকরিটাই বজায় রেখেছেন, তবে অন্য স্কুলে। আবার বিয়েতে একদমই ইচ্ছা নেই।
অতঃপর রিচা ম্যাডামের ফ্ল্যাটেঃ
“জন, স্টে হিয়ার টুনাইট”- জানলা দিয়ে বাইরের অবস্থা দেখছিল জন। রাস্তায় হাল্কা জল দাঁড়িয়েছে। বৃষ্টি সমানে হয়ে চলেছে। হঠাৎ ম্যাডামের কথায় চমকে উঠল জন। “না ম্যাম, কোনও প্রব হবে না, আমি যেতে পারব।”
“স্টপ ইট, বাইরে এত বৃষ্টি পরছে, তুমি বাইক নিয়ে কিভাবে যাবে? এখানে থেকে যাও। বাড়িতে ফোন করে বলে দাও, নাহলে ওনারা চিন্তা করবেন”- হুমমম, চিন্তার ব্যাপার। অগত্যা জন মাকে এসএমএস করে জানিয়ে দিল যে রাত্রে ও ম্যাডামের বাড়িতেই থাকছে। “ওয়েল, তুমি বেডরুমে শুয়ে পর, আমি ড্রইংরুমে শোব”- ম্যাডাম বললেন। ওনার দিকে তাকিয়ে ঘাড় নাড়ল জন।
“তুমি কিভাবে চেঞ্জ করবে? ”

Advertisements